শনিবার, মে ১৮, ২০২৪
হোমজেলাব্রাহ্মণবাড়িয়াআগুনে ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌর ভবনের সবই শেষ, ৬ দিন ধরে ময়লা আবর্জনা অপসারন...

আগুনে ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌর ভবনের সবই শেষ, ৬ দিন ধরে ময়লা আবর্জনা অপসারন হচ্ছে না

ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌরসভার সকল নাগরিক সেবা বন্ধ। ৬ দিন ধরে ময়লা-আবর্জনা অপসারন হচ্ছে না। এতে দুর্গন্ধে ছড়াচ্ছে। নাক চেপে চলছেন শহরের মানুষ। রবিবার হেফাজতের হরতাল চলাকালে হামলা হয় পৌরসভায়। ভাঙ্গচুর-অগ্নিসংযোগের পর চালানো হয় লুটপাট। এতে পৌরসভার সবকিছু নিশ্বে:ষ হয়ে যায়। পৌরসভার সংশ্লিষ্ট শাখার কর্মচারীরা জানিয়েছেন, ময়লা যে সরাবেন সেই বেলচা পর্যন্ত লুট হয়েছে। ঝাড়–, টুকরি, শাবল, ঘামবুট, ব্লিচিং পাউডারের ড্রাম কোন কিছুই নেই। গার্ভেজ ট্রাক-ট্রলি ভাঙচুর-ধ্বংস করা হয়েছে। ৩’শ পোর্টেবল মোবাইল ডাষ্টবিন, ২’শ পোর্টেবল হ্যান্ড ট্রলি এবং ২০টি রিকসা ভ্যান পুড়িয়ে দেয়া হয়েছে। ফলে ময়লা-আবর্জনা অপসারনের কাজ বন্ধ তাদের। সবমিলিয়ে পৌরসভার ক্ষয়ক্ষতি ব্যাপক। কোন কার্যক্রম চালানোর মতো ব্যবস্থাই নেই।
পৌরসূত্র জানায়- স্বাধীনতা দিবসে প্রথম হামলা হয় পৌরসভার বঙ্গবন্ধু স্কয়ারে। সেখানে থাকা বঙ্গবন্ধুর ৩টি ম্যুরাল ভাঙ্গচুর করা ছাড়াও স্কয়ারের ফোয়ারাতে থাকা ৯টি সাবমার্সিবল পাম্প আগুনে পোড়ানো হয়। পৌর মুক্তমঞ্চের গ্রানাইট পাথর,৫০টি বৈদ্যুতিক খুটি,২০টি ফ্লাড লাইট ভাঙ্গচুর করা হয়। ২৮ মার্চ হরতাল চলাকালে হামলা হয় পৌরভবনে। ভাঙচুর-লুটপাটের পর আগুন ধরিয়ে দেয়া হয় সেখানে। এতে ৪ তলা বিশিষ্ট পুরো পৌরভবনই ক্ষতিগ্রস্থ হয়। পৌরভবনের আসবাবপত্র বলতে কোন কিছু নেই। আগুনে ছাই হয়ে গেছে সব রেকর্ডপত্র।
ক্ষয়ক্ষতির বিবরণে পৌর কর্মকর্তারা জানান, ২০টি ষ্টিলের আলমারী, ২৫টি কাঠের আলমারী, ১৮টি ডেস্কটপ কম্পিউটার, ৫টি ল্যাপটপ, ৪টি ফটোকপিয়ার মেশিন, ৩৪টি টেবিল, ৭টি সেক্রেটরিয়েট টেবিল,১১৫টি চেয়ার, ২ টনের এসি ৫টি, স্বাস্থ্য শাখার ১২টি ড্রিপ ফ্রিজ, ৪টি সাধারন ফ্রিজ, ভ্যাকসিন, সিলিং ফ্যান, ষ্টোরে রক্ষিত ১০ হাজার এলইডি বাতি,৩হাজার বাতি সেড, ৫০ কয়েল বৈদ্যুতিক তার, বিভিন্ন ধরনের ১৬টি গাড়ি, ইক্যুয়েপমেন্ট চেইন ডোজার ১টি, রোড রোলার ৩টি, ১টি মশক নিধন গাড়ি, হাইড্রোলিক বীম লিফটার ১টি, ভেকুটেক ১টি, এক্সাভেটর ১টি, হাইড্রোলিক ড্রিলিং মেশিন ১টি, ঘাস কাটার মেশিন ২টি, মিকচার মেশিন ৩টি, ভাইবেটর ২টি ভাঙচুর ও আগুনে পুড়ানো হয়। এছাড়া ভান্ডারে রক্ষিত যানবাহনের খুচরো যন্ত্রাংশ, সংরক্ষণ শাখার মালামাল, ষ্টেশনারী মালামাল, বাড়ির প্ল্যান অনুমোদনের পে-অর্ডারসহ নথি, চেক রেজিষ্টার, ইস্যু রেজিষ্টার, ক্যাশ বহি, এ্যাসেট রেজিষ্টার, সকল কর্মকর্তা-কর্মচারীদের ব্যাক্তিগত নথি ও সার্ভিস বই, সকল রেজিষ্টার, বিভিন্ন ডকুমেন্টস, ঠিকাদারের বিল-জামানতের নথিসহ বিভিন্ন মালামাল আগুনে পুড়ে গেছে বলে জানান তারা। পৌরসভার সুর স¤্রাট ওস্তাদ আলাউদ্দিন খা পৌর মিলনায়তন আগুনে ভষ্ম হয়েছে। মিলনায়তনের ৫’শ চেয়ার, ২০ সেট সোফা, ২০টি ৫ টনের এসি, ১০টি ২ টনের এসি এবং ১৫০টি সিলিং ফ্যান আগুনে পুড়ে ছাই হয়ে গেছে।
দেড়শো বছরের পুরনো এই পৌরসভা এখন নাম সর্বস্ব। পৌরসভার মেয়র মিসেস নায়ার কবির বলেন, হেফাজতের স্থানীয় কিছু নেতা-কর্মী, বিএনপি-জামায়াত এবং সদ্য অনুষ্ঠিত পৌরসভা নির্বাচনে আমার দুই প্রতিদ্বন্দ্বিকে নিয়ে এই হামলা চালিয়েছে। তিনি জানান, ২৬ মার্চ বঙ্গবন্ধু স্কয়ারে হামলা হয়। সে সময় বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতি শাবল দিয়ে ক্ষত-বিক্ষত করা হয়। গান পাউডার ও পেট্রোল ঢেলে পৌরভবনের সবকিছু জ্বালিয়ে দেয়া হয়েছে। হামলার সময় ভীত সন্ত্রস্ত পৌরসভার কর্মকর্তা-কর্মচারীরা পার্শ্ববর্তী সুইপার কলোনীতে পালিয়ে জীবন বাচাঁন। এতে আমাদের শত কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে। তাছাড়া আমার বাসভবনেও হামলা চালিয়ে ভাঙচুর করে। সেখানে নিচতলায় থাকা একটি ডিপার্টমেন্টাল ষ্টোরের মালামাল লুট করে নেয়া হয়। ফলে পৌরসভার পক্ষ কোন রকম নাগরিক সেবা দেয়া সম্ভব হচ্ছে না।

মন্তব্য করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments