বুধবার, সেপ্টেম্বর ২৮, ২০২২
হোমজেলাব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবায় ব্যক্তি মালিকানাধীন জায়গা দখলে নিতে মরিয়া প্রধান শিক্ষক ও সহকারী...

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবায় ব্যক্তি মালিকানাধীন জায়গা দখলে নিতে মরিয়া প্রধান শিক্ষক ও সহকারী শিক্ষক: ব্যবস্থা গ্রহণে জেলা শিক্ষা অফিসে আবেদন

  • নিজস্ব প্রতিবরদক:
    ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবায় ব্যক্তি মালিকানাধীন জায়গা বিদ্যালয়ের দখলে নিতে মরিয়া হয়ে উঠেছেন প্রধান শিক্ষক রুবিনা আক্তার ও সহকারী শিক্ষক জুমান। জায়গা না ছাড়ায় অশালীন আচরণ করাসহ হুমকি-ধামকি দেওয়া হচ্ছে জায়গার মালিক মোঃ কবির হোসেন ভূইয়াকে। ভুক্তভোগী ও ক্ষতিগ্রস্থ জায়গার মালিকের পক্ষ থেকে উপজেলার ধামসার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও সহকারি শিক্ষকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের আবেদন জানিয়ে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসারের নিকট দরখাস্ত দিয়েছেন কবির হোসেন ভূইয়ার স্বজন মোঃ হেবজুল বারী। পাশাপাশি এ ঘটনার প্রতিকার চেয়ে কসবা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান, উপজেলা শিক্ষা অফিসার বরাবরেও এ দরখাস্ত জমা দেয়া হয়েছে। এছাড়া হুমকি-ধামকির ঘটনায় কবির হোসেন ভূইয়া কসবা থানায় সাধারণ ডায়েরী করেছেন। প্রধান শিক্ষকের হুমকি-ধমকি ও অশালীন আচরণের ঘটনায় ভুক্তভোগী কবির হোসেন ভূইয়া আতঙ্কিত ও ক্ষতিগ্রস্থ। এ নিয়ে ধামসার গ্রামে বিরাজ করছে উত্তেজনা।
    দাখিল করা আবেদন পর্যালোচনা ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, কসবা উপজেলার ০৫নং বিনাউটি ইউনিয়নের ধামসার গ্রামের কবরস্থান, শ্বশ্মান এর মাটি ভরাট, প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সীমানা প্রচীর, ঈদগাহের মাঠি ভরাটসহ বিভিন্ন উন্নয়ন ও সামাজিক কার্যক্রমে মোঃ কবির হোসেন ভূইয়ার পরিবারের অবদান অনেক। তাদের উদ্যোগেই এসব কার্যক্রম বাস্তবায়িত হয়েছে। কবির হোসেন ভূইয়া নিজেই সংশ্লিষ্ট অফিসগুলোতে দৌঁড়-ঝাপ করেছেন। বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটি গঠন না করে এডহক কমিটি দিয়ে পরিচালনা ও প্রধান শিক্ষক-মদদপুষ্ট সদস্যদের নিয়ে বিভিন্ন অনিয়মের বিষয়েও আইনমন্ত্রী এড. আনিসুল হক এমপি’র নিকট একাধিক আবেদন করা হয়েছে। এসব বিষয় নিয়ে প্রধান শিক্ষকের চক্ষুশূল হয়েছিলেন মোঃ কবির হোসেন ভূইয়া। সম্প্রতি (২০২০ সালে) ধামসার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের জন্য সরকার নতুন ভবন বরাদ্দ করার পর পূর্ব আক্রোশে প্রধান শিক্ষক বিদ্যালয়ের ভূমিসংলগ্ন মোঃ কবির হোসেনের মালিকানাধীন জায়গাকে বিদ্যালয়ের জায়গা বলে প্রচার করেন এবং রাতের আঁধারে সীমানা নির্ধারণী খুঁটি স্থাপন করান। এ বিষয়ে জানতে প্রধান শিক্ষকের অফিসকক্ষে গেলে কবির হোসেন ভূইয়াকে প্রধান শিক্ষক ও সহকারি শিক্ষক গালমন্দ করে বের করে দেন। পরে এ বিষয়ে আবেদন করার পর কসবা সহকারি কমিশনার (ভূমি) ঘটনাস্থল পরিদর্শন-মাপঝোঁক শেষে নতুন দখলকৃত জায়গা ‘বিদ্যালয়ের নয়, ব্যক্তি মালিকানাধীন’ ঘোষণা করেন। এরপরও থেমে যান নি প্রধান শিক্ষক।
    জায়গার মালিক মোঃ কবির হোসেন ভূইয়া আবারও প্রধান শিক্ষকের কাছে গিয়ে নিজের জায়গার মালিকানা দাবি করলে প্রধান শিক্ষক ও সহকারি শিক্ষক কবির হোসেন ভূইয়ার সাথে অশালীন আচরণ করেন এবং হুমকি-ধামকি দেন। এই জায়গা নিতে এলে হাত-পা ভেঙ্গে দেয়ার হুঁশিয়ারি দেন। হুমকি-ধামকিতে আতঙ্কিত কবির হোসেন বাড়ি যাওয়ার পথে সিএনজি অটোরিকশাতেই জ্ঞান হারান। পরে তাকে হাসপাতালে নেয়া হয়। অপমান-অপদস্থে বর্তমানে তিনি মানসিক ভাবে ভেঙ্গে পড়েছেন। এ বিষয়ে কবির হোসেন কসবা থানায় সাধারণ ডায়রেী করেন (যার নং- সিডিআর-৭৩)।
    প্রধান শিক্ষকের এ ধরণের অশালীন আচরণ ও হুমকি-ধামকির ঘটনায় ধামসার গ্রামে উত্তেজনা বিরাজ করছে। কবির হোসনকে অপমান করায় ক্ষোভে ফুঁসছে সাধারণ মানুষজন। এলাকার সাধারণ মানুষ বিক্ষোভ মিছিলও করেছেন প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে। চলতি বছরের গত ১৩ জানুয়ারি প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার আবেদন করলেও এখনো কোনো পদক্ষেপ গ্রহণ না করায় ক্ষুব্ধ স্থানীয়রা উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

মন্তব্য করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments