বুধবার, সেপ্টেম্বর ২৮, ২০২২
হোমজেলাব্রা‏হ্মণবাড়িয়ার কসবায় ইউপি নির্বাচনকে কেন্দ্র করে দুই পক্ষের সংঘর্ষ

ব্রা‏হ্মণবাড়িয়ার কসবায় ইউপি নির্বাচনকে কেন্দ্র করে দুই পক্ষের সংঘর্ষ

  • কসবা(ব্রা‏হ্মণবাড়িয়া)প্রতিনিধি :
    ব্রা‏হ্মণবাড়িয়ার কসবায় ইউপি নির্বাচনকে কেন্দ্র করে আইন মন্ত্রীর নিজ গ্রাম পানিয়ারুপে আজ মঙ্গলবার বিকেলে চেয়ারম্যান প্রার্থীর সমর্থনকারী ওয়ার্ড আওয়ামীলীগ সাধারণ সম্পাদক মিলন মিয়া (৭২) ও তার ছেলে রুহুল আমিন (৩০)কে পিটিয়ে মারধোর করেছে প্রতিপক্ষ প্রার্থীর লোকজন। পরে পুলিশ তাদেরকে উদ্ধার করে কসবা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করিয়েছে। এ নিয়ে পুরো এলাকায় চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়েছে।
    আহত মিলন মিয়া (৭২) কসবা উপজেলার কাইমপুর ইউনিয়নের এক নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক। তিনি ওই ইউনিয়নের পানিয়ারুপ গ্রামের বাসিন্দা। তার ছেলে রুহুল আমিন (৩০) আওয়ামীলীগের কর্মী।
    ৬ষ্ঠ ধাপে কসবা উপজেলার সাতটি ইউনিয়নের (ইউপি) নির্বাচন আগামী ৩১ জানুয়ারি। এ নির্বাচনে আইন মন্ত্রী আনিসুল হক এর নির্বাচনী এলাকা ব্রা‏হ্মণবাড়িয়ার- ৪ (কসবা ও আখাউড়া) এলাকায় দলীয় প্রতীকে নির্বাচন হচ্ছে না। স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসাবে প্রত্যেকে নির্বাচন করছেন।
    ওই নির্বাচনে কাইমপুর ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্ধিতা করছেন বর্তমান চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামীলীগের আহবায়ক কমিটির সদস্য মো. ইয়াকুব আলী ভূইয়া। তাঁর সাথে প্রতিদ্বন্ধিতা করছেন ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ইকতিয়ার আলম।
    ক্ষতিগ্রস্থ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, বর্তমান চেয়ারম্যান মো. ইয়াকুব আলী ভূইয়ার নির্বাচনের সমর্থনকারী ওয়ার্ড আওয়ামীলীগেরে সাধারণ সম্পাদক মো. মিলন মিয়া। তিনি আজ মঙ্গলবার বিকালে পানিয়ারুপ গ্রামের বাজারে যাওয়ার পথে অপর চেয়ারম্যান প্রার্থী ইকতিয়ার আলমের সমর্থিত পানিয়ারুপ গ্রামের বাসিন্দা আবুল খায়েরের নেতৃত্বে কয়েকজন যুবক তাকে পিটিয়ে গুরুতর আহত করে। এ সময় তারা তাঁর পা ভেঙে দিয়েছে। খবর পেয়ে বাড়ির লোকজন দৌড়ে এসে তাকে কসবা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসে। পরে তারা মিলন মিয়ার বাড়িতে ভাংচুর চালায়। বাঁধা দিলে এ সময় তারা মিলন মিয়ার ছেলে রুহুল আমিনকেও মারধোর করেছে। খবর পেয়ে কসবা থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে রুহুল আমিনকে উদ্ধার করে কসবা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ভর্তি করে। খবর পেয়ে কাইমপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. ইয়াকুব আলী ভূইয়া আহত মিলন মিয়া ও তাঁর ছেলেকে দেখতে হাসপাতালে আসেন। তিনি বলেন, তাঁর পক্ষে প্রচারনা করায় তাকে মারধোর করা হয়েছে।
    আহত মিলন মিয়া বলেন, মাননীয় আইন মন্ত্রী আনিসুল হক মহোদয় বলেছেন উৎসবমুখর পরিবেশে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। যার যার প্রছন্দের প্রার্থীর পক্ষে কাজ করবেন। তিনি চেয়ারম্যান মো. ইয়াকুব আলী ভূইয়ার পক্ষে নির্বাচন করায় তার প্রতিপক্ষ ইকতিয়ার আলমের সমর্থিত আবুল খায়েরের লোকজন এসে তাকে মারধোর করেছে। তিনি বলেন, ইয়াকুব আলীর পক্ষে কাজ করায় তাকে বিভিন্ন সময়ে হুমকি-দুমকি দেওয়া হয়েছিল। তিনি আরো বলেন, ইয়াকুব আলী উচ্চশিক্ষিত মানুষ। দীর্ঘ পাঁচ বছরের সুনামের সহিত দায়িত্ব পালন করেছিলেন।

কসবা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মুহাম্মদ আলমগীর ভূঞা বলেন, পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে আহতদের উদ্ধার করেছে। এ ঘটনায় কেউ কোন লিখিত অভিযোগ করেনি। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

মন্তব্য করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments