রবিবার, জুলাই ১৪, ২০২৪
হোমজেলামানুষের নজর উপজেলা নির্বাচন: আগে ভাগেই সরাইলে মাঠে আ’লীগের আট নেতা

মানুষের নজর উপজেলা নির্বাচন: আগে ভাগেই সরাইলে মাঠে আ’লীগের আট নেতা

সরাইল প্রতিনিধি

জাতীয় সংসদ নির্বাচন গেলো। এখন উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের আলোচনা সামনে আসছে।চায়ের আড্ডায় এখন আলোচনায় সরাইল উপজেলা নির্বাচন। একদিকে দরজায় কড়া নাড়ছে উপজেলা পরিষদ নির্বাচন অন্যদিকে কারা হচ্ছেন প্রার্থী এ নিয়ে সর্বত্র আলোচনায় ব্যস্ত সরাইল উপজেলার ৯ ইউনিয়নের সাধারণ মানুষ। দলীয় প্রার্থী দেবে না বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ এমন সংবাদে নির্বাচনী মাঠ আরো জমতে শুরু করেছে তবে শেষ মুহুর্তে ব্যক্তি সহ এলাকায় কর্মকাণ্ডই ভোটের মাঠে পার্থক্য গড়ে দিতে পারে বলে মনে করছেন অনেকেই। এখনো পর্যন্ত সরাইল উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে প্রার্থী হওয়ার দৌড়ে আলোচনায় রয়েছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মো. রফিক উদ্দিন ঠাকুর, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক যুগ্ন আহবায়ক বীর মুক্তিযোদ্ধা এড. আব্দর রাশেদ, সরাইল উপজেলা আওয়ামী যুবলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা পরিষদ সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান মো. শের আলম মিয়া, ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা আওয়ামী সেচ্ছাসেবক লীগের কার্য নির্বাহি কমিটির সদস্য ও উপজেলা পরিষদ ভাইস চেয়ারম্যান আবু হানিফ মিয়া। উপজেলা আওয়ামী লীগের আহবায়ক কমিটির সাবেক সদস্য এড.মোখলেছুর রহমান,
ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা আওয়ামী মৎস্যজীবী লীগের যুগ্ম আহবায়ক ও সেলিম খন্দকার ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান মো. সেলিম খন্দকার
কেন্দ্রীয় যুবলীগ নেতা মো. নাজিম উদ্দিন ভাসানী,
শাহবাজপুর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান, ইউপি যুবলীগের সাবেক সম্পাদক রাজিব আহমেদ রাজ্জি।উপজেলা জুড়ে নীরবে নির্বাচনী মাঠে সক্রিয় রয়েছেন এই আট রাজনীতিবিদ। তবে আঞ্চলিকতা ফ্যাক্টর হতে পারে এ নির্বাচনে এমনটা মনে করছেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা। এখন পর্যন্ত সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম গুলো সহ নির্বাচনী মাঠে সম্ভাব্য প্রার্থীদের কর্মী ও সমর্থকরা প্রচার প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন তাদের পছন্দের প্রার্থীর পক্ষে। তবে শেষ মুহুর্তে কারা ঠিকে থাকতে পারবেন নির্বাচনী মাঠে এমন প্রশ্ন ঘুরপাক খাচ্ছে সাধারণ ভোটারদের মুখে। উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক যুগ্ন আহবায়ক বীর মুক্তিযোদ্ধা এড. আব্দুর রাশেদ বলেন, আমি নির্বাচন করছি এটা নিশ্চিত দীর্ঘ দিন রাজনীতি করার পাশাপাশি সাধারণ মানুষের পাশে থাকার চেষ্টা করেছি। কখনো কাউকে ঠকাইনি আশা করি জনগণ বিবেচনা করবে। আমি আমার প্রস্তুতি সঠিক ভাবেই নিচ্ছি নিজ ইউনিয়ন এবং বিভিন্ন এলাকার মানুষকে নিয়েই নির্বাচন করবো। নির্বাচনে মাঠে অনেক এলাকায় ঘুরতেছি।নেতাকর্মীসহ এলাকার মানুষের সাড়া পাচ্ছি।
শাহবাজপুর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান, ইউপি যুবলীগের সাবেক সম্পাদক রাজিব আহমেদ রাজ্জি বলেন, একজন মুক্তিযোদ্ধার সন্তান হিসাবে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মানে সরাইল উপজেলার তরুন প্রজন্ম কে সময়োপযোগী করে গড়ে তুলার মানসে আমার আসন্ন উপজেলা নির্বাচনে অংশ গ্রহনের প্রয়াস।উন্নয়নের মহাসড়কে সরাইল কে ধাবিত করাই হবে আমার একমাত্র লক্ষ্য। উপজেলা আওয়ামী যুবলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা পরিষদ সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান মো. শের আলম বলেন, দলের নেতাকর্মী সহ অনেকেই আমাকে প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করার জন্য বলছেন। নির্বাচনী মাঠে আমি কাজও করছি দেখছি জনগণের অনেক সাড়া পেয়েছি। তৃণমূল থেকে শুরু করে সকল দলীয় নেতাকর্মীদের সাথে নিয়ে মাঠে কাজ করছি। ইনশাআল্লাহ জনগন আমার সাথে থাকবেন।
ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা আওয়ামী সেচ্ছাসেবক লীগের কার্য নির্বাহি কমিটির সদস্য ও উপজেলা পরিষদ ভাইস চেয়ারম্যান আবু হানিফ মিয়া বলেন, ভাইস চেয়ারম্যান হিসেবে উপজেলার মানুষের পাশে নিজের সর্বোচ্চ দিয়ে থাকার চেষ্টা করেছি। এখন পর্যন্ত আমি নির্বাচন করবো এটা শতভাগ নিশ্চিত মানুষের প্রচুর সাড়া পাচ্ছি আশা করি শেষ মুহুর্ত পর্যন্ত সব কিছু ঠিক ঠাক থাকবে। নির্বাচন না করার কোন প্রশ্নই ওঠেনা। সরাইল উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মো. রফিক উদ্দিন ঠাকুর বলেন, সব এলাকায় কম বেশ যোগাযোগ রাখার চেষ্টা করছি। জনগণ আবারো নির্বাচন করার জন্য আমাকে চাপ দিচ্ছি তবে এখনো যেহেতু হাতে সময় রয়েছে সুতরাং মাঠের পরিস্থিতি বুঝে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করবো। এদিকে উপজেলা পরিষদ নির্বাচন সামনে রেখে সরাইল উপজেলায় আগেভাগেই মাঠে নেমে পড়েছেন আওয়ামী লীগের নেতাকর্মী। বিশেষ করে উপজেলা চেয়ারম্যান পদে মনোনয়নপ্রত্যাশী নেতারা তৎপরতা শুরু করে দিয়েছেন। মনোনয়নের দৌড়ে রয়েছেন দলের প্রায় আট নেতা। তারা কর্মীদের পক্ষে টানার চেষ্টা এবং কেন্দ্রে লবিং করছেন। সূত্রে জানায়, গত নির্বাচনে সরাইল উপজেলায় দলের বিদ্রোহী প্রার্থী নির্বাচিত হন।মনোনয়ন প্রত্যাশীরা জানান, এবারও হয়তো উপজেলা নির্বাচনে বিএনপি-জামায়াত প্রার্থী দেবে না। দলীয় মনোনয়ন পাওয়া গেলে জয় সহজ হবে। সে জন্য মনোনয়নপ্রত্যাশীর সংখ্যা অনেক। আওয়ামী লীগের সম্ভাব্য প্রার্থীরা দলের নেতাকর্মী ও স্থানীয় মানুষের সঙ্গে বৈঠক করছেন। কেন্দ্রীয় কমিটি ও জেলা কমিটির শীর্ষ নেতাদের সঙ্গে চালিয়ে যাচ্ছেন লবিং। তৎপরতা চালাচ্ছেন মনোনয়নপ্রত্যাশীদের কর্মী-সমর্থকরাও। সরাইল
উপজেলা আওয়ামী লীগের একাধিক নেতার সঙ্গে কথা হলে তারা জানান, সরাইল উপজেলাতেই আওয়ামী লীগের অনেক নেতা প্রস্তুতি ও দৌড়ঝাঁপ শুরু করেছেন। নির্বাচনমুখী বড় দল হওয়ায় প্রার্থীও অনেক। তবে দলের কোন মনোনীত প্রার্থী থাকবে না। তারা বলেন, সদ্য সমাপ্ত সংসদ নির্বাচনে যারা মনোনয়ন চেয়ে পাননি, তাদের মধ্যেও কয়েকজন উপজেলা চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন করতে চাইছেন।

মন্তব্য করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments