রবিবার, জুলাই ১৪, ২০২৪
হোমসবমায়ের জানাজায় অংশগ্রহণ করতে পারেনি  সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত বিদেশ ফেরত পুত্র ও ...

মায়ের জানাজায় অংশগ্রহণ করতে পারেনি  সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত বিদেশ ফেরত পুত্র ও  মেয়ের জামাই

নিজস্ব প্রতিবেদক
মায়ের জানাজায় অংশগ্রহণ করতে পারেনি সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত বিদেশ ফেরত পুত্র ও মেয়ের জামাই। নরসিংদীর শিবপুরে ট্রাকের সাথে মাইক্রোবাসের মুখোমুখী সংঘর্ষে ইতালী প্রবাসীসহ দুইজন নিহত হয়েছেন। বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ঢাকা-সিলেট মহাড়কের শিবপুর
উপজেলার ঘাসিরদিয়া এলাকায় এই দুর্ঘটনা ঘটে। নিহতরা হলেন- সদর উপজেলার নাটাই এলাকার বাসিন্দা শাহজাহান মেম্বারের পুত্র ইতালি প্রবাসী শাহ আলম (৫০) এবং তার ভগ্নিপতি একই উপজেলার শামসু উদ্দিনের ছেলে সেলিম মিয়া (৪০)। ইতালি প্রবাসী শাহ আলম বার্ধক্যজনিত কারণে মারা যাওয়া তাঁর মায়ের জানাজায় অংশ নিতে বাড়ি ফেরার পথে এই দুর্ঘটনার কবলে পড়েন।
হাইওয়ে পুলিশ ও নিহতের পরিবারের সদস্যরা জানান, দীর্ঘ ১৪ বছর ধরে স্ত্রী-সন্তান নিয়ে ইতালিতে বসবাস করছিলেন, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার শাহআলম। গত বুধবার সন্ধ্যায় বার্ধক্যজনিত কারণে তার মায়ের মৃত্যু হয়। খবর পেয়ে গতকাল বৃহস্পতিবার দেশে ফিরে জানাজায় অংশ নিতে বিমানবন্দর থেকে মাইক্রোবাসযোগে বাড়ির উদ্দেশ্যে রওয়ানা দেন শাহ আলম ও তার ভগ্নিপতি সেলিম মিয়া, ভাগিনাসহ চারজন। তাদের বহনকারী মাইক্রোবাসটি শিবপুরের ঘাসিদিয়া এলাকায় পৌঁছলে বিপরিত দিক থেকে আসা পাথর বোঝাই ট্রাকের সাথে মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়।
এতে মাইক্রোবাসটি দুমড়ে মুচড়ে গিয়ে ঘটনাস্থলেই শাহ আলম এবং হাসপাতালে নেয়ার পর তার ভগ্নিপতি সেলিম মিয়ার মৃত্যু হয়। এই ঘটনায় মাইক্রোবাসের চালকসহ আরো দুইজন আহত হয়েছেন।
ইটাখোলা হাইওয়ে থানার উপ-পুলিশ পরিদর্শক আরিফুর রহমান জানান, ঢাকা থেকে ব্রাহ্মণবাড়িয়াগামী মাইক্রোবাসটি বেপরোয়া গতিতে ঘাসিরদিয়া এলাকায় পৌঁছলে বিপরীত দিক থেকে আসা পাথর বোঝাই ট্রাকের সাথে মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে ঘটনাস্থলেই একজনের মৃত্যু হয়। হাসপাতালে আনার পর চিকিৎসাধীন অবস্থায় আরো একজনের মৃত্যু হয়। মাইক্রোবাসের চালক এবং অপর যাত্রী নরসিংদী জেলা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। নিহতরা হলেন- সদর উপজেলার নাটাই এলাকার বাসিন্দা শাহজাহান মেম্বারের পুত্র ইতালি প্রবাসী শাহ আলম (৫০) এবং তার ভগ্নিপতি একই উপজেলার শামসু উদ্দিনের ছেলে সেলিম মিয়া (৪০)। পরিবারের আবেদনের প্রেক্ষিতে পরবর্তী আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।
এ দিকে মায়ের মৃত্যু অপর দিকে ছেলে ও জামাতার মৃত্যুতে পরিবারসহ সদর উপজেলার নাটাই গ্রাম জুড়ে শোকের ছায়া নেমে এসেছে। পরিবারে চলছে শোকের মাতম। দুর্ঘটনার খবরে দুপুরে মায়েরর দাফন শেষ করে তাদের দু’জনের নিথর দেহ আনতে নরসিংদী ছুটে যান পরিবারের সদস্যরা। রাত নয়টার দিকে তাদের কফিন বন্দি মরদেহ বাড়িতে আনা হলে হৃদয় বিদারক আবহের সৃষ্টি হয়। অল্প সময়ের ব্যবধানে একই পরিবারের তিনজনের চলে যাওয়া কিছুতে মানতে পারছেন না স্বজনরা। আজ শুক্রবার জুম্মার নামাজের পর নিহতদের জানাজা শেষে দাফন সম্পন্ন হয় বলে পরিবারের পক্ষ থেকে জানানো হয়।

মন্তব্য করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments