রবিবার, জুলাই ১৪, ২০২৪
হোমজাতীয়লকডাউনের পূর্বেই খাদ্য ও কর্মের নিশ্চয়তার দাবিতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে সমাবেশ

লকডাউনের পূর্বেই খাদ্য ও কর্মের নিশ্চয়তার দাবিতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে সমাবেশ

সবার জন্য করোনা ভ্যাকসিন এবং পর্যাপ্ত ফিল্ড হাসপাতাল নির্মাণ করে বিনামূল্যে চিকিৎসা নিশ্চিত করা; শ্রমজীবী জনগণের খাদ্য ও কর্মসংস্থানের নিশ্চয়তা এবং শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ভর্তুকি দিয়ে শিক্ষার্থীদের বেতন-ফি মওকুফ করার দাবিতে ৮ টি ছাত্র সংগঠনের যৌথ উদ্যোগে ঢাবিতে সমাবেশ অনুষ্ঠিত। আজ ১১ এপ্রিল (রবিবার) বেলা ১২ টায় প্রগতিশীল ৮ টি ছাত্র সংগঠনের যৌথ আয়োজনে সন্ত্রাস বিরোধী রাজু ভাস্কর্যের সামনে এই সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

সভাপতির বক্তব্যে সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্টের সভাপতি মাসুদ রানা বলেন, ভঙ্গুর স্বাস্থ্যব্যবস্থা, অপর্যাপ্ত চিকিৎসা সেবা ও সরকারের দায়িত্বহীনতার ফলে করোনায় মানুষের মৃত্যু হার বাড়ছে। অবিলম্বে পর্যাপ্ত, আইসিইউ, করোনা বেড, ফিল্ড হাসপাতালের ব্যবস্থা করতে হবে। অন্যথায়, সারাদেশে কঠোর আন্দোলন গড়ে তোলা হবে।

বাংলাদেশ ছাত্র ফেডারেশনের সভাপতি গোলাম মোস্তফা বলেন, লকডাউনের শর্তপূরণ না করে ঘরে আটকে রেখে মানুষকে মৃত্যুর মুখে ঠেলে দিচ্ছে সরকার। শ্রমজীবী মানুষের কর্ম ও খাবারের নিশ্চয়তা ছাড়া লকডাউন অর্থহীন। সরকারি-বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সকল শিক্ষার্থীর বেতন-ফি মওকুফ করতে হবে।

গণতান্ত্রিক ছাত্র কাউন্সিলের সভাপতি আরিফ মঈনউদ্দীন বলেন, করোনা আক্রান্তদের যাবতীয় চিকিৎসার খরচ সরকারকেই বহন করতে হবে। সকল নাগরিকের জন্য অবিলম্বে করোনার ভ্যাকসিন দিতে হবে।

বাংলাদেশ ছাত্র ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি দীপা মল্লিক বলেন, ফ্যাসিবাদী সরকার মানুষের জীবন-জীবিকার দায়িত্ব পালনে ব্যর্থ। মানুষের অধিকার এবং গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার লড়াইয়ে সর্বস্তরের জনগণকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানান তিনি।

বিপ্লবী ছাত্র-যুব আন্দোলনের দপ্তর সম্পাদক আব্দুল মমিন সরকারের উদ্দেশ্যে বলেন, করোনা আক্রান্ত মানুষকে অক্সিজেন দিতে পারেন না কিন্তু ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের নামে জনগণকে নির্যাতন করেন এই আপনাদের গণতন্ত্রের নমুনা?

বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়ন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সহ-সাধারণ সম্পাদক শিমুল কুম্ভকার বলেন, যতই দিন যাচ্ছে ততই মানুষের দুর্ভোগ বাড়ছে। মানুষ ভোট দিতে পারছেনা, অক্সিজেন পাচ্ছে না। দেশের সম্পদ পাচার হচ্ছে।একদিকে কোটিপতির সংখ্যা বাড়ছে অন্যদিকে দরিদ্র পরিবারের সংখ্যাও বাড়ছে। গণতান্ত্রিক শাসনব্যবস্থা ছাড়া এই পরিস্থিতির পরিবর্তন হবে না।

বিপ্লবী ছাত্র মৈত্রীর কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক দিলীপ রায়ের সঞ্চালনায় সমাবেশে আরো উপস্থিত ছিলেন, বিপ্লবী ছাত্র মৈত্রীর সভাপতি ইকবাল কবির, বাংলাদেশ ছাত্র ফেডারেশনের সভাপতি মিতু সরকার, বাংলাদেশ ছাত্র ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক জাহিদ সুজন, সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সভাপতি সালমান সিদ্দিকী প্রমুখ।

বার্তা প্রেরক

জাহিদ সুজন

সাধারণ সম্পাদক, বাংলাদেশ ছাত্র ফেডারেশন।

মন্তব্য করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments